আগামী ১৫ দিনের মধ্যে এমপিওভুক্তির অনলাইন আবেদন শুরু হবে।

0
279
দৈনিক শিক্ষাবার্তা পত্র‌িকার সাংবাদিক হতে চান ?

অনলাইন নিউজ ড‌েস্ক,দৈনিক শিক্ষাবার্তাঃ    আগামী ১৫ দিনের মধ্যে নতুন বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (স্কুল, কলেজ ও মাদ্রসা) এমপিওভুক্তির জন্য অনলাইন আবেদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে। অনলাইন আবেদনের সফটওয়ার ডেভেলপমেন্ট শেষ হলে শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির আবেদন জানাতে বলা হবে। সোমবার (২৫ জুন) রাজধানীর নীলক্ষেতে বাংলাদেশ শিক্ষাতথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরো (ব্যানবেইস) কার্যালয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের গঠন করা দুই কমিটির প্রথম যৌথসভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (বেসরকারি মাধ্যমিক) ও এমপিওভুক্তির জন্য বাছাই কমিটি আহ্বায়ক জাবেদ আহমেদের সভাপতিত্বে এ সভা হয়।
জাবেদ আহমেদ বাংলা সাংবাদিকদ‌ের বলেন, ‘প্রথম যৌথসভায় দুই কমিটি কীভাবে কাজ করবে তার কর্মপরিকল্পনা করা হয়েছে। সভায় পিপিআর অনুসরণ করে একটি আধুনিক সফটওয়ার তৈরি ও এর আর্থিক সংশ্লেষের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। সফটওয়ার ডেভেলপমেন্টের জন্য ব্যানবেইসকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সফটওয়ার ডেভেলপ হলে আমরা ট্রায়ল রান করবো। তারপর আমরা অনলাইন অ্যাপ্লিকেশন নেওয়া শুরু করবো। ’অনলাইন আবেদন ফরমে কী থাকবে সফটয়ার তৈরির জন্য ঠিকাদার নিয়োগ করার সিদ্ধান্তসহ গাইলাইন তৈরি করা হয়েছে। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে অনলাইন আবেদনের পুরো প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে।’

বিজ্ঞাপন

এমপিওভুক্তির জন্য বাছাই কমিটির সদস্য ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের যুগ্মসচিব (সেরকারি মাধ্যমিক) সালমা জাহান বাংলা  বলেন, ‘যৌথসভার সিদ্ধান্ত ও কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী কমিটি পরবর্তী পদক্ষেপ নেবে।’

এমপিওভুক্তির জন্য বাছাই কমিটির সদস্য যুগ্মসচিব সালমা জাহান আরও বলেন, ‘কীভাবে আবেদন বাছাই সহজ হবে, আগের অনলাইন অবেদন ফরম এর সুবিধা-অসুবিধা যাচাই করা হবে। তারপর নতুন আবেদন ফরম তৈরি করা হবে। সফটওয়ার ডেভেলপমেন্টের জন্য ঠিকাদার নিয়োগ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’

মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের গঠিত কমিটি দুটির মধ্যে ‘অনলাইন অ্যাপ্লিকেশন গ্রহণ ও ব্যবস্থাপনা’ কমিটি আবেদন গ্রহণ করে তা প্রাথমিক যাচাই-যাচাইয়ের করবে। শর্ত পূরণ করা প্রতিষ্ঠানের আবেদন বাছাই করে ক্যাটাগরি অনুযায়ী তালিকাও প্রস্তুত করবে।
আর অনলাইন অ্যাপলিকেশন গ্রহণ ও ব্যবস্থাপনা কমিটির তালিকা ধরে এমপিওভুক্ত করার জন্য চূড়ান্ত তালিকা তৈরি করবে এমপিওভুক্তির জন্য বাছাই কমিটি।

এর আগে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (বেসরকারি মাধ্যমিক) জাবেদ আহমেদ বাংলা সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, প্রতিষ্ঠানগুলোকে অনলাইনে আবেদন জানাতে বলা হবে। আবেদন করার পর অনলাইন অ্যাপলিকেশন গ্রহণ ও ব্যবস্থাপনা কমিটি প্রাথমিক যাচাই-বাছাই করবে। আর এমপিওর জন্য যাছাই কমিটি গ্রেডিং অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্ত করার জন্য সুপারিশ করবে।
নীতিমালা অনুযায়ী ৪টি ক্যাটগারিতে গ্রেডিং করা হবে— সিনিয়রিটি, ফলাফল, প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীর সংখ্যা এবং পরীক্ষার সংখ্যা।
এমপিও নীতিমালা মেনেই এমপিওভুক্তির চূড়ান্ত তালিকা করা হবে বলে জানান অতিরিক্ত সচিব জাবেদ আহমেদ।

এদিকে, গত ১০ জুন থেকে এমপিওভুক্তির দাবিতে বেসরকারি নন-এমপিও শিক্ষকরা আন্দোলন করছেন। সর্বশেষ সোমবার (২৫ জুন) থেকে আমরণ অনশনের আহ্বান জানিয়ে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন তারা। মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রথম পর্যায়ে ১ হাজার বা তার কিছু বেশি প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করবে সরকার। তবে তা নির্ভর করবে বরাদ্দের ওপর।

আন্দোলনকারীরা জানিয়েছেন, বর্তমানে নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে ৫ হাজার ২৪২টি। এছাড়া সরকার নতুন করে ১৩১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতি দিয়েছে।
আন্দোলককারী শিক্ষকদের দাবি, ৩ হাজার থেকে সাড়ে ৩ হাজার প্রতিষ্ঠান রয়েছে এমপিও পাওয়ার মতো।

আপনার মন্তব্য

Please enter your comment!
Please enter your name here