এমপিওভুক্তির বৈঠক হবে আজ: বাছাই তালিকায় ২৭৬২টি।

0
257
দৈনিক শিক্ষাবার্তা পত্র‌িকার সাংবাদিক হতে চান ?

নিজস্ব সংবাদদাতা,দৈনিক শিক্ষাবার্তাঃ

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির কাজ করতে গিয়ে বহুমুখী চাপে রয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। চার মানদণ্ডের ভিত্তিতে যোগ্য স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় এমপিও দিতে অনড়  মন্ত্রী-উপমন্ত্রী ও সচিবসহ মন্ত্রণালয়ের অন্যান্যরা । কিন্তু নানাভাবে চাপ সৃষ্টি করছেন কিছু সংসদ সদস্যসহ প্রভাবশালীরা। সংশ্লিষ্ট সূত্র দৈনিক শিক্ষাবার্তাকেএমপিওভুক্তির বৈঠক হবে আজ: বাছাই তালিকায় ২৭৬২টি। এসব তথ্য জানিয়েছে।

বিজ্ঞাপন

তবে চলতি মাসেই এমপিও পাওয়া নতুন প্রতিষ্ঠানের নাম প্রকাশ করতে চায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ লক্ষ্যে ছুটির দিনসহ তালিকা চূড়ান্ত করার কাজ চলছে। সর্বশেষ শুক্র ও শনিবার বাংলাদেশ শিক্ষা তথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরোতে (ব্যানবেইস) মন্ত্রণালয়ের দুই বিভাগ তালিকা তৈরির কাজ করেছে। ওই তালিকা নিয়ে আজ বিকেলে বৈঠকে বসছেন কর্মকর্তারা। এতে শিক্ষামন্ত্রী সভাপতিত্ব করবেন বলে জানা গেছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এবার মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগ আলাদাভাবে এমপিওর জন্য যোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তালিকা করেছে। প্রতিষ্ঠানের একাডেমিক স্বীকৃতি, শিক্ষার্থীর সংখ্যা, পরীক্ষার্থীর সংখ্যা এবং পরীক্ষায় পাসের হার- এ চার শর্ত বিবেচনায় নিয়ে প্রতিটি মানদণ্ডের জন্য ২৫ নম্বর করে দেয়া হয়। ১০০ নম্বরের মধ্যে যেসব প্রতিষ্ঠান বেশি নম্বর পেয়েছে, সেসব প্রতিষ্ঠানকে যোগ্য হিসেবে বাছাই করা হয়।

জানা গেছে, প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে যোগ্যতা নির্ধারণ করতে গিয়ে দেখা যায়, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ ১১১টি থানায় একটি প্রতিষ্ঠানও যোগ্য হিসেবে পায়নি। আর কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগ পায়নি ৭৭ থানায়। দুই বিভাগের তালিকা সমন্বয় করে দেখা গেছে, শতাধিক থানায় এমপিও পাওয়ার মতো কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নেই। এখন ওইসব উপজেলায় কোন মানদণ্ডের ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠান বাছাই করা হবে সেটি নির্ধারণেই আজ বৈঠকে বসছেন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা। শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি ইতিমধ্যে ৩ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির ঘোষণা দিয়েছেন সংসদে। ইতিমধ্যে ২ হাজার ৭৬২টি প্রতিষ্ঠান যোগ্য হিসেবে চিহ্নিত করেছে মন্ত্রণালয়। সে হিসাবে বিশেষ বিবেচনায় আড়াইশ’ প্রতিষ্ঠান এমপিও পেতে পারে, যা উল্লিখিত থানা এবং দুর্গম ও অনগ্রসর এলাকা থেকে বাছাই করা হতে পারে।

সূত্র জানায়, এ ব্যাপারে ইতিমধ্যে দুই বিভাগ আলাদা প্রস্তাব তৈরি করেছে। এর মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ এমপিও নীতিমালার ২২ ধারার আলোকে অনগ্রসর ও দুর্গম এলাকার প্রতিষ্ঠানকে এমপিও দিতে চায়। এছাড়া ১১১ থানায় সর্বোচ্চ নম্বর প্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলোকে এমপিও দেয়ার প্রস্তাব তৈরি করেছে। অপরদিকে কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগ এমপিও নীতিমালার ৩৫ ও ৩৬ ধারার আলোকে এমপিও দিতে চায়। কিন্তু ওই বিভাগের এক শীর্ষ কর্মকর্তা এ ক্ষেত্রে ৭৭ উপজেলা থেকে ইচ্ছামতো এমপিও দিতে চান। কিন্তু এতে জটিলতার উদ্ভব ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা। তবে উভয় বিভাগই বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) দরিদ্র ম্যাপ অনুযায়ী থানা নির্বাচনের পক্ষে। এমন পরিস্থিতিতে আজ মন্ত্রী ও উপমন্ত্রীর কাছে দিক নির্দেশনা চাওয়া হবে বলে জানা গেছে।

এদিকে মন্ত্রণালয়ের উভয় বিভাগের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, পছন্দের প্রতিষ্ঠানকে এমপিও দিতে প্রায় প্রতিদিনই কোনো না কোনো সংসদ সদস্যের ডিও (আধা সরকারি পত্র) জমা পড়ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে।

গত বছর আগস্টে বিজ্ঞপ্তি দিলে ৯ হাজার ৬১৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির আবেদন করে। এসব প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করতে লাগবে ৪ হাজার ৩৯০ কোটি ১২ লাখ ৫ হাজার টাকা। তবে যদি যোগ্য বিবেচিত প্রতিষ্ঠানগুলোকে এমপিও দেয়া হয় তাহলে লাগবে ১ হাজার ২০৭ কোটি ৬৬ লাখ ৬৭ হাজার টাকা। সবমিলে ২ হাজার ৭৬২টি প্রতিষ্ঠান যোগ্য বিবেচিত হয়েছে।

আপনার মন্তব্য

Please enter your comment!
Please enter your name here