করোনায় আক্রান্ত কামরানকে দ্রুত ঢাকায় নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন মহানগর যুবলীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক মেহেদী কাবুল। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সিলেটের সাবেক মেয়র ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য বদর উদ্দিন আহমদ কামরানারের অবস্থার অবনতি হওয়াই উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। রোববার সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে তিনি নগরীর শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতাল থেকে বের হন। তাকে সিএমএইচে নেওয়া হচ্ছে।

করোনায় আক্রান্ত কামরানকে ঢাকায় নেওয়া হচ্ছে
নগরীর শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতাল থেকে হুইল চেয়ারে বসে বের হন কামরান- দৈনিক শিক্ষাবার্তা।

এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি কামরানকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হবে বলে জানিয়েছেন মহানগর যুবলীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক মেহেদী কাবুল। কামরানের সঙ্গে তার স্ত্রী আসমা কামরানও ঢাকায় যাবেন।

গত শুক্রবার ওসমানী মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে কামরানের নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়। এরপর শনিবার তীব্র জ্বর ও বমিটিংয়ের জন্য নগরীর শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর আগে গত ২৮ মে আসমা কামরানেরও করোনা শনাক্ত হয়।

মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসমা কামরান করোনায় আক্রান্ত হয়ে বাসায় আইসোলেশনে ছিলেন। সেই সময় কামরানের করোনা পরীক্ষা হলেও প্রথমে নেগেটিভ রিপোর্ট আসে। তারপও তিনি নগরীর ছড়ারপারের বাসায় কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন।

শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক (আরএমও) ডা. সুশান্ত কুমার মহাপাত্র জানান, ইতিমধ্যে করোনায় আক্রান্ত কামরানকে ঢাকায় স্থানন্তরের জন্য ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। এখানে সর্বোচ্চ চিকিৎসা দেওয়া হলেও পরিবারের ইচ্ছায় তাকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

ওসমানী মেডিকেল কলেজের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. ইউনুছুর রহমান জানান, করোনার উপসর্গ ছাড়াও কামরানের ডায়াবেটিকসসহ শারীরিক কিছু সমস্যা আছে। এ জন্য অভিজ্ঞ চিকিৎসকদের সমন্বয়ে মেডিকেল বোর্ড গঠন করো হয়।

এ দিকে কামরানের শারীরিক অবস্থা অবনতির খবর পেয়ে বিকেল থেকে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালের সামনে ভিড় করেন। এদের মধ্যে কয়েকজন নেতা কামরানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন।

আপনার মন্তব্য

আপনার মতামত দিন
আপনার নাম