দৈনিক শিক্ষাবার্তা ডেস্ক :

বাংলাদেশের সঙ্গে বাস ও যাত্রীবাহী ট্রেন সার্ভিস আগামী ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করেছে ভারত। করোনাভাইরাসের কারণে ভারত এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে। একই সঙ্গে বাংলাদেশ, ভুটান, নেপাল ও মিয়ানমারের সঙ্গে দেশটির ১৮টি সীমান্ত চেকপয়েন্টও বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। শুক্রবার ভারত সরকার এ ঘোষণা দেয়। এর আগের দিন বাংলাদেশের নাগরিকদের জন্য সব ধরনের ভিসা বন্ধের কথা জানায় তারা। খবর: হিন্দুস্তান টাইমস ও ইন্দোসমাচারের।

বাংলাদেশের সঙ্গে বাস ও যাত্রীবাহী ট্রেন বন্ধ ঘোষণা ভারতের
বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের ট্রেন বন্ধ ঘোষণার পর শুক্রবার অনেক যাত্রী টিকিট ফেরত দিতে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে ভিড় করেন।

ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা অনীল মালিক বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে বাস ও যাত্রীবাহী ট্রেন সেবা ১৫ মার্চ থেকে আগামী ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত পুরোপুরি বন্ধ থাকবে। এ ছাড়া দু’দেশের মধ্যকার সীমান্ত হাটও এ সময়ের জন্য বন্ধ থাকবে। করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার কারণে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে মালবাহী ট্রেন চলাচল অব্যাহত থাকবে।

অনীল মালিক আরও জানান, বাংলাদেশ, ভুটান, নেপাল ও মিয়ানমারের সঙ্গে ভারতের ৩৭টি চেকপয়েন্ট রয়েছে। এর মধ্যে চার দেশের সঙ্গে ১৮ সীমান্ত চেকপয়েন্ট শনিবার মধ্যরাতের পর বন্ধ করে দেওয়া হবে। বাকি ১৯টি চালু থাকবে।

তিনি জানান, চার দেশের সঙ্গে এ ১৯টি চেকপয়েন্ট আসাম, বিহার, মিজোরাম, ত্রিপুরা, উত্তরপ্রদেশ, উত্তরাখণ্ড ও পশ্চিমবঙ্গ সীমান্তে অবস্থিত। এর মধ্যে বাংলাদেশের সঙ্গে শুধু পশ্চিমবঙ্গের ছাদারবান্ধা পয়েন্ট ও আগরতলা সীমান্ত পয়েন্ট চালু থাকবে।