নিজস্ব প্রতিবেদক, দৈনিক শিক্ষাবার্তাঃ

মাই গভ’ অ্যাপ বর্তমান সরকারের সময়ে একটি যুগান্তকারী আবিষ্কার। ১৭২ সেবার অঙ্গীকার নিয়ে উদ্বোধন করা হয়েছে ‘মাই গভ’ অ্যাপ। অ্যাপটিতে যেসব সেবা পাওয়া যাবে তার মধ্যে রয়েছে জরুরি সেবা, জমির খতিয়ান সংক্রান্ত তথ্য জানা, বিপদে পড়লে সাহায্য নেওয়াসহ নানান কিছু।

‘মাই গভ’ অ্যাপে জমির খতিয়ানসহ মিলবে ১৭২টি সেবা
‘মাই গভ’ অ্যাপ এর শুভ উদ্বোধন করেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

শেখ হাসিনা বুধবার (৮ জানুয়ারি) সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত ‘তৃতীয় ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস ২০১৯ সম্মাননা প্রদান’ অনুষ্ঠানে এই অ্যাপ উদ্বোধন করেন। বাংলাদেশে তৈরি একটি স্মার্টফোনে অ্যাপটিতে ক্লিক করে এর উদ্বোধন করেন তিনি।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মন্ত্রী জুনা‌ইদ আহ্‌মেদ পলক এসময় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন।

শুরুতে ৭টি ক্যাটাগরিতে ১৭২টি সেবা মিলবে এই অ্যাপে। ‘ডিজিটাল বাংলাদেশের অবদান, এক ঠিকানায় সব সমাধান’ শ্লোগানে যাত্রা করা অ্যাপটিতে পর্যায়ক্রমে সরকারি সব সেবা ও প্রয়োজনীয় বেসরকারি যুক্ত হবে।

কোথাও কোনো রেস্টুরেন্ট বা দোকানে পানির বোতলের দামও যদি বেশি নেয় তাহলেও সেটা মাই গভ অ্যাপের মাধ্যমে ভোক্তা অধিকারে অভিযোগ জানানো যাবে।

কোথাও আগুন লাগলে বা কোনো বিপদে পড়লে মাই গভ অ্যাপে গিয়ে ঝাঁকি দিলেই ৯৯৯ নম্বরে ফোন চলে যাবে।

সারাদেশে কতজন বয়স্কভাতা পেয়েছেন এই তথ্য বা যে কোনো তথ্য পাওয়ার আবেদন করা যাবে অ্যাপটি ব্যবহার করে। যদি কারও জমির মৌজা ম্যাপ দরকার হয় তবে তা পেতে কী করতে হবে জানা যাবে সেখানে, জাতীয় পরিচয় পত্রের নম্বর দিলে পেয়ে যাবেন নিজের জমির ম্যাপও।

অ্যাপটির সেবা পরিচয় পর্বে বলা হয়, একটি মাত্র অ্যাপ ব্যবহার করে সরকারি সব সেবার আবেদন, প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দাখিল, অনলাইনে পরিশোধ ও আবেদনের আপডেট জানা যাবে।

শুধুমাত্র ভয়েস ব্যবহার করেও সেবার অনুসন্ধান, আবেদন ও আবেদন পরবর্তী আপডেট পাওয়া যাবে। এখানে আবেদনকারীর পরিচয় এনআইডি’র মাধ্যমে নিশ্চিত করা হয়।

মাই গভ থেকে প্রয়োজনে ৩৩৩ নম্বরে ফোন করেও সেবা নেয়া যাবে। অধিকতর সেবার জন্য অ্যাপটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে সংযুক্ত করবে কাছের ডিজিটাল সেন্টারকে। এরকম নানা ধরনের সেবা নিয়ে জনগণের হাতে যাচ্ছে বাংলাদেশ সরকারের মাই গভ অ্যাপ।

ভারত, মালয়েশিয়া, অস্ট্রেলিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এই নামে বা ভিন্ন নামে এই ধরনের অ্যাপ চালু আছে। যার সুফল পাচ্ছেন সেসব দেশের মানুষ। বাংলাদেশের জনগণ ও এই অ্যাপ এর সুফল পাবে।