দৈনিক শিক্ষাবার্তা পত্র‌িকার সাংবাদিক হতে চান ?

ফিরোজ মান্না ॥ সৌদি আরব অবৈধ কর্মীদের নিজ উদ্যোগে দেশে ফেরার জন্য সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেছে। আগামী ২৯ মার্চ থেকে অবৈধ সৌদি আরব অবৈধদের জন্য সাধারন ক্ষমা ঘোষণা করেছে।অভিবাসীরা এই সুযোগ নিতে পারবেন। সাধারণ ক্ষমার মেয়াদ বেঁধে দেয়া হয়েছে এক মাস। এক মাসের মধ্যে কোন অবৈধ প্রবাসী দেশে না ফিরলে তাদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেয়ার ঘোষণাও করেছে কর্তৃপক্ষ। তবে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এটা কোন দুচিন্তার বিষয় নয়। এটা তাদের রুটিন কাজ। তারা অবৈধ হয়ে গেছেন তাদের তো দেশে ফিরতেই হবে। তারা দেশে ফিরলেও কোন ক্ষতি নেই। কারণ সৌদি আরবের শ্রম বাজারে বাংলাদেশের বিপুল কর্মী যাচ্ছেন।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, সাধারণ ক্ষমা ঘোষণার পর অবৈধ প্রবাসীরাও দূতাবাস থেকে আউটপাস সংগ্রহ করা শুরু করেছেন। কর্তৃপক্ষ বলছেন ৩ লাখের বেশি কর্মী অবৈধ হয়ে পড়েছেন দেশটিতে। তবে এ সংখ্যা আরও বেশি হতে পারে। মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি কর্মী সৌদি আরবে কাজ করেন। সরকারী হিসাব মতে সৌদিতে প্রায় ২৬ লাখ কর্মী কর্মরত রয়েছেন। এত বিপুল সংখ্যক কর্মীর মধ্যে অবৈধ কর্মীর সংখ্যাও অনেক বেশি। প্রতিনিয়তই সৌদিতে নতুন কর্মী নিয়োগ হচ্ছে। আবার চাকরির মেয়াদ শেষ করে অনেকে দেশেও ফিরে আসছেন। এর আগেও সৌদি কর্তৃপক্ষ সোর্স কান্ট্রিগুলোর অবৈধ কর্মীদের সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেছিল। তখনও অনেক দেশের অবৈধ কর্মীদের দেশে ফিরতে হয়েছে। এবারও একইভাবে দেশটির কর্তৃপক্ষ সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেছে। ঘোষণা অনুযায়ী ২৯ মার্চ থেকে বিভিন্ন দেশের অবৈধ কর্মীদের দেশে ফিরতে হবে। একই সঙ্গে বাংলাদেশেও ৩ লাখের বেশি কর্মীকে দেশে ফিরতে হতে পারে। তবে অনেকে আকামা বা চাকরির সময় বাড়ানোর আবেদন করে রেখেছেন। তাদের হয়তো শেষ পর্যন্ত বৈধ করে নেয়া হবে। মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, সৌদি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ আলোচনা চলছে। যাদের আল্পদিন আগে চাকরির সময় শেষ হয়েছে-তাদের যেন আরও এক বার চাকরির মেয়াদ বাড়ানো হয়। সৌদি কর্তৃপক্ষ এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়কে কিছু জানায়নি।

বিজ্ঞাপন

সৌদিতে আবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস সূত্র জানিয়েছে, বিষয়টি নিয়ে সৌদি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ আলোচনা চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে। তারা যদিও এখন পর্যন্ত কোন ইতিবাচক সাড়া দেয়নি। আশা করা যাচ্ছে, বেশ কিছু কর্মীকে বৈধ করে নিতে পারে। মূলত দেশটিতে তিন ধরনের অবৈধ অভিবাসী রয়েছে। তাদের আলাদা ধাপ অনুসরণ করে দেশে ফিরতে কোন ধরনের জেল-জরিমানায় পড়তে হবে না। শুধু সৌদি আরব ত্যাগের জন্য কয়েকটি প্রক্রিয়া অনুসরণ করতে হবে। যারা কাজের ভিসা নিয়ে সৌদি আরব এসে আকামার (রেসিডেন্ট পারমিট) মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার পর আর নবায়ন করেননি, নিয়োগকর্তা পলাতক দেখিয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন, কাজের ভিসায় এসে কোন কারণে সব কাগজপত্র হারিয়ে ফেলেছেন, ইমিগ্রেশনে ফিঙ্গারপ্রিন্ট নেই, অবৈধভাবে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে সৌদি আরব প্রবেশ করেছেন, তাছরিহা (অনুমতি পত্র) ছাড়া হজ করতে গিয়ে মামলা হওয়ায় আকামা নবায়ন হচ্ছে না, কারও ডিপেন্টডেন্ট হিসেবে থাকার পর এখন অবৈধ অথবা সৌদি শ্রম আইন লঙ্ঘনের দায়ে মামলা হয়েছে, যেসব অভিবাসীরা মেয়াদ আছে এমন পাসপোর্ট, পাসপোর্ট না থাকলে দূতাবাস থেকে আউটপাস (বিশেষ ট্রাভেল পাস) সংগ্রহ করে সেটা নিয়ে নিকটস্থ ইমিগ্রেশন অফিস, সফরজেল অথবা ডিপোটেশন সেন্টারে গিয়ে এক্সিট ভিসা সংগ্রহ করার পর বিমান টিকেট কিনে দেশে ফিরতে হবে।

সূত্রঃ দৈনিক জনকন্ঠ,প্রকাশঃ ০৮ মার্চ ২০১৯।

আপনার মন্তব্য

Please enter your comment!
Please enter your name here