আবারো আন্দোলনের প্রস্তুতি নিচ্ছে প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদ

নিজস্ব প্রতিবেদক, দৈনিক শিক্ষাবার্তা:

প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের মধ্যে গ্রেড ব্যবধান সমস্যার সমাধান করতে প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদ দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন সংগ্রাম করে আসছেন।

প্রধান শিক্ষকদের ১০ গ্রেড ও সহকারী শিক্ষকদের ১১ গ্রেড আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদ। শুক্রবার (২০ ডিসেম্বর) রাজধানীর বংশালে অনুষ্ঠিত পরিষদের নীতি নির্ধারণী কমিটির বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়। এছাড়া আগামী ২৯ ডিসেম্বর ঢাকায় সংগঠনের জেলা প্রতিনিধিদের সভা আহ্বান করা হয়েছে। আর পরদিন ৩০ ডিসেম্বর সংবাদ সম্মেলন করে নতুন কর্মসূচি ঘোষণার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক মো. আনিসুর রহমান দৈনিক শিক্ষাবার্তা কে জানান, বৈঠকে শিক্ষক নেতারা প্রধান শিক্ষকদের ১০ম গ্রেড ও সহকারী শিক্ষকদের ১১তম গ্রেড আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত রাখার ব্যাপারে অনড় অবস্থান ব্যক্ত করেন। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবে। এছাড়া বিদ্যালয়ের সময়সূচি এবং শ্রান্ত-বিনোদন নিয়ে কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছেন ঐক্য পরিষদ নেতারা। পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাতের চেষ্টাও চলছে।

ঐক্য পরিষদকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে একটি মহল ষড়যন্ত্র করছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, শিক্ষকদের ন্যায্য দাবি আদায়ে কাজ করছে তাদের সংগঠন। আগামীতে দাবি আদায়ে আরও গতিশীল ভূমিকা রাখবে প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদ ।

প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদ প্রধান মুখপাত্র মো. বদরুল আলম মুকুল জানান, যে সকল উপজেলা ও জেলায় ঐক্য পরিষদের কমিটি গঠিত হয়নি তাদেরকে আগামী ২০ জানুয়ারির  মধ্যে কমিটি গঠনের কথা বলা হয়েছে। আর আগামী ২৯ ডিসেম্বর জেলা প্রতিনিধিদের নিয়ে প্রতিনিধি সভা আহ্বান করা হয়েছে। রাজধানীর বংশালে ওইদিন সকালে নজরুল ইসলাম মিলনায়তন এই সভা অনুষ্ঠিত হবে। সেই সভার আলোচনার ভিত্তিতে ৩০ ডিসেম্বর সংবাদ সম্মেলন করে পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। আগামী বছর মুজিব বর্ষে প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদ শিক্ষকদের ন্যায্য দাবি বাস্তবায়নের সুখবর পাবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। এছাড়া শিক্ষকদেরকে উদ্বুদ্ধ করতে প্রতিটি বিভাগে সম্মেলনের আয়োজন করা হবে বলেও জানান তিনি।

এদিকে কয়েকটি সূত্র জানিয়েছে, ঐক্য পরিষদের নেতারা ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার কথা জানালেও বৈঠকে অনুপস্থিত ছিল পরিষদের বেশ কয়েকটি সংগঠন।