এখন থেকে ভূমির নামজারিতে আবেদনপত্র পেশ করার প্রয়োজন হবে না। দলিলের কপি ও সম্পত্তি হস্তান্তর নোটিশের (এলটি নোটিশ) মাধ্যমে সরাসরি নামজারি/ই-নামজারির জন্য মিস কেস রুজু করা যাবে। ভূমি মালিকের আলাদা আবেদনের প্রয়োজন নেই।ভূমির নামজারিতে আর আবেদনের প্রয়োজন নেই

সোমবার ভূমি মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা মাঠপর্যায়ের ভূমি অফিসের করণীয় বিষয়ক এক দিকনির্দেশনামূলক পরিপত্রে এ তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে। আট দিনে নামজারি সম্পন্ন করার কাজ প্রথম পর্যায়ে সাভার উপজেলায় চালু করা হয়েছে।

নামজারি/ই-নামজারি খতিয়ানের ভিত্তিতে জমির দলিল রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হলেও এর ভিত্তিতে মালিকানা পরিবর্তন হলে সে ক্ষেত্রে সংশ্নিষ্ট বিধান প্রযোজ্য হবে। এ ক্ষেত্রে প্রচলিত পদ্ধতি অনুসরণ করার প্রয়োজন হবে না। সংশ্নিষ্ট ইউনিয়ন/পৌর ভূমি অফিস, সার্ভেয়ার/কানুনগোর সরেজমিন তদন্তের আবশ্যকতা নেই বলেও নির্দেশনা রয়েছে পরিপত্রে।

পরিপত্রে আরও বলা হয়, জমি হস্তান্তর দলিল রেজিস্ট্রেশন করার সময় সাব-রেজিস্ট্রার তিন কপি দলিল সম্পাদন করবেন। এর মধ্যে একটি কপি দলিল গ্রহীতা পাবেন, দ্বিতীয় কপি সাব-রেজিস্ট্রি অফিস সংরক্ষণ করবে ও তৃতীয় কপি ও এলটি নোটিশের একটি পরিচ্ছন্ন কপি সংশ্নিষ্ট উপজেলা/সার্কেল ভূমি অফিসে পাঠাতে হবে।

দলিলের কপি ও এলটি নোটিশের কপি ভূমি অফিসে পৌঁছানোর পর প্রচলিত বিধান অনুযায়ী নামজারির ফি ও সার্ভিস চার্জ পরিশোধ করা ও দলিল অবিকল নকল কপিসহ উপস্থিত হয়ে শুনানি গ্রহণের জন্য সর্বোচ্চ চার কার্যদিবসের মধ্যে সময় দিয়ে দলিল গ্রহীতাকে ই-মেইল/মেসেজ দিতে হবে। এ ছাড়া দলিলের কপি ও এলটি নোটিশ এসিল্যান্ডের কাছে পৌঁছানোর তারিখ হতে পরবর্তী আট কার্যদিবসের মধ্যে নামজারি সম্পন্ন করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here