শহীদ মিনার চত্বরে তল্লাশি ছাড়া কোনো ব্যক্তি প্রবেশ করতে পারবে নাশহীদ মিনার চত্তরে তল্লাশি ছাড়া কোনো ব্যক্তি প্রবেশ করতে পারবে না বললেন (ডিএমপি) কমিশনার।শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে শহীদ মিনার এলাকা জুড়ে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম।

বুধবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) সকালে জাতীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে নিরাপত্তা ব্যবস্থা পর্যবেক্ষণ শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘বাঙালি জাতির যে কয়েকটি গৌরবের ও ভালোবাসার বিষয়গুলো রয়ে গেছে, তার ভেতরে আমাদের শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস অন্যতম। এতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা অন্যবার যেভাবে নেওয়া হয়, এবারও ঠিক একইভাবে নিরাপত্তা নেওয়া হয়েছে। এই দিবসকে কেন্দ্র করে শহীদ মিনার চত্বরে আমাদের চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে।’

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘আমাদের ব্যারিকেডের ভেতরে যত জায়গা থাকবে, প্রতিটি ইঞ্চি সিসিটিভি মনিটরিংয়ের ভেতরে থাকবে। শহীদ মিনারের দিকে আসার যে রাস্তা, সে রাস্তায় আর্চওয়েসহ পুলিশ অফিসার মোতায়েন থাকবে। অর্থাৎ তল্লাশি ছাড়া কোনো ব্যক্তি শহীদ মিনার চত্বরে ঢুকতে পারবে না।’

শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আপনারা জানেন যে আগের দিন শুরু হয়ে পরের দিন দুপুরের পর পর্যন্ত তিন পালায় ২৪ ঘণ্টার জন্য আমাদের ফোর্স অফিসার মোতায়েন থাকবে। পাশাপাশি সোয়াট, ডগ স্কয়াড ও বম্ব ডিসপোজাল ইউনিট থাকবে যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলা করার জন্য। এটার পাশাপাশি সাদা পোশাকে আমাদের ডিবির টিম এবং স্পেশাল ব্র্যাঞ্চের টিম নিয়োজিত থাকবে।’

ডিএমপি কমিশনার আরো বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় আমাদের যতটা সম্ভব প্রতিটি এলাকায় আলাদা আলাদা প্যাট্রল এবং মোবাইল টিম থাকবে। অনেক ক্ষেত্রে রাস্তায় পাশে রুট লাইনিং করা থাকবে। যাতে করে সবাই ভালোভাবে ঢুকতে এবং বের হতে পারবে।’

‘আর শহীদ মিনার এলাকায় যাঁরা আসবেন, তাঁরা সবাই পলাশী ক্রসিং হয়ে আসবেন। এবং শহীদ মিনারে পুষ্প অর্পণ শেষে দোয়েল চত্বর বা রুমানা চত্বর হয়ে তাঁরা বের হয়ে যাবেন। উল্টা দিক থেকে, অর্থাৎ বের হওয়ার রাস্তা দিয়ে কাউকে না ঢোকার জন্য অনুরোধ করব। শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য আমরা তৎপর থাকব, যাতে উল্টা পথে কেউ প্রবেশ বা ঢুকতে না পারে।’ বলছিলেন ডিএমপি কমিশনার।

ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘শহীদ মিনার এলাকায় যেহেতু রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী আসবেন, সেহেতু সমস্ত এলাকাটা সুইপিং করা হবে। এবং নিরাপত্তার জন্য সর্বোচ্চ যে ব্যবস্থাটা, সেটা রাখা হবে।’

ভাষা দিবসকে কেন্দ্র করে কোনো ধরনের নিরাপত্তা হুমকি আছে কি না জানতে চাইলে ডিএমপি কমিশনার আরো বলেন, ‘এবার আমরা খুব আশাবাদী যে এই ধরনের কোনো ঘটনা ঘটবে না। কারণ, এখন পর্যন্ত আমাদের কোনো গোয়েন্দা সংস্থা, সিটিটিসি থেকে শুরু করে যারা জঙ্গি নিয়ে কাজ করে, তারা সবাই আমাদের কাছে তথ্য দিয়েছে যে এ ধরনের কোনো হামলার আশঙ্কা নেই।